চার্জশিট কি বা কাকে বলে


এই চার্জশীট কথাটি আমাদের জীবনে বহুবার আমরা শুনে থাকি কিন্তু আমরা এর সঠিক মানে অনেক ক্ষেত্রেই বুঝতে পারিনা। 

 

আজকের আর্টিকেলটি লেখা হয়েছে চার্জশীট এর উপর। চার্জশিট কি এবং এ সম্পর্কে আরো অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য নিয়ে। 

 

চার্জশিট কি (what is charge-sheet in bengali)

চার্জশিট কি বা কাকে বলে-what-is-chargesheet

থানার ও.সি বা অন্য কোন তদন্তকারী অফিসার মামলা তদন্ত শেষে যখন জানতে পারেন মামলার যে অপরাধটির উল্লেখ রয়েছে সেটি সত্য তিনি  অভিযুক্ত আসামিদের প্রকাশ্য আদালতে বিচারের জন্য এবং অভিযুক্ত নয় এমন আসামিদের অব্যাহতি প্রদানের জন্য পুরো ঘটনার বিবরণ দিয়ে ম্যাজিষ্ট্রেট এর নিকট যে রিপোর্ট পেশ করেন তাকেই চার্জশিট বলে। 

 

প্রথমে কি করা হয় (before of charge-sheet)

কোনও ব্যক্তি তার অভিযোগ নিয়ে থানায় উপস্থিত হলে, তারপরে থানায় তার অভিযোগটি শোনা হয়,এবং সেটির উপর এফআইআর দায়ের করা হয় বিভিন্ন ধারায়। 

 

তারপরে সিআরপিসির ধারা অনুযায়ী, পুলিশ কর্মকর্তা তার অধিকার অনুযায়ী যে জায়গায় ঘটনাটি ঘটেছিল, সেখানে গিয়ে মামলার তদন্ত করে দেখেন। 

 

তদন্ত চলাকালীন, যে কোনও ব্যক্তি এই বিষয়টির সাথে সম্পর্কিত, অর্থাৎ প্রত্যক্ষদর্শী বা অন্য কোনও ব্যক্তিও তাদের কাছ থেকে বিবৃতিটি রেকর্ড করতে পারেন। প্রয়োজনে, তাদের থানায়ও ডেকে আনা হতে পারে বা বিষয়টি আদালতে গেলে তাদের সেখানে ডাকা হতে পারে।

 

চার্জশীট কিভাবে করা হয় (charge-sheet forming)

charge sheetর পুরো ব্যাপারটি এসেছে ফৌজদারী আইন থেকে। ফৌজদারি আইন বলতে বোঝায় criminal law ফৌজদারী আইনের নিয়ম অনুসারে ,criminal procedure code অনুযায়ী ম্যাজিস্ট্রেট অফিসার চার্জ গঠন করে।

 

পুলিশ তদন্ত শেষ হলে নির্দিষ্ট ধারা অনুসারে, থানার ইনচার্জ অফিসার এই অপরাধের বিষয়টি বিবেচনার জন্য ক্ষমতাপ্রাপ্ত ম্যাজিস্ট্রেটের নিকট নির্ধারিত একটি রিপোর্ট পাঠান। 

 

যদি নথির বিবেচনা করে, অভিযোগটি ভিত্তিহীন বা মিথ্যা বলে বিবেচিত হয় ম্যাজিস্ট্রেট অভিযুক্ত ব্যক্তিকে ডিসচার্জ করতে পারেন। 

 

অভিযোগ সত্যি হলে তিনি চার্জ গঠন করেন। 

 

চার্জশিটে কি কি থাকতে পারে (contains of draft charge-sheet)

  • Time and Place- সময় এবং স্থান কখনও কখনও চার্জের অংশ হতে পারে। উদাহরণ হিসাবে – অফিসের চত্বরে এবং অফিসের সময় দাঙ্গাবাজি আচরণ। এমনকি time  এবং place যখন চার্জের একটি অপরিহার্য অংশ গঠন করে না, তবুও তাদের উল্লেখ করা উচিত, যাতে ঘটনাটি নির্দিষ্ট বা specific হতে পারে। 

 

  • Misbehavior – misbehavior বা অসদাচরণের করার ক্ষেত্রে ,অসদাচরণের সময় ঘটা প্রত্যেকটি ঘটনার পৃথক অভিযোগ হিসাবে বর্ণনা করা হয় ।

 

  • Misbehavior গুলি সঠিক নাম দিয়ে বর্ণনা করতে হয় যাতে Code of Conduct আইন বা regulation গুলো ভাঙা সঠিক ভাবে বর্ণনা করা যায়। 

 

  • কেউ যদি তার অভ্যাস অনুযায়ী Misbehavior বা অসদাচরণের করে, সেক্ষেত্রে ‘অভ্যাসগত’ শব্দের উল্লেখ করা দরকার। অভ্যাসটি উল্লেখ করে অতীতের রেকর্ডটিও দেওয়া উচিত।

 

  • চার্জশিটে নিছক অনুমান অনুযায়ী বা নিজ-বিচারের পরিবর্তে সঠিক তথ্য থাকা উচিত । “অমানবিকতা” বা “অসন্তুষ্টিজনক কাজ”, “অবহেলা”, “দুর্ব্যবহার বা শৃঙ্খলাবদ্ধ” শব্দগুলির ব্যবহার করলেই যে তাকে অপরাধী হিসাবে ভাবতে হবে এরকম কোনো মানে নেই , যতক্ষণ না, সেই শব্দগুলো  ব্যবহারের ক্ষেত্রে, সঠিক তথ্য দিয়ে সঠিক ঘটনাটিকে সমর্থন বা সাপোর্ট করা হচ্ছে ।

 

সর্বোপরি ,

আজকের আর্টিকেলে জানলেন চার্জশিট কি বা কাকে বলে। অনেক ক্ষেত্রে অনেক ঘটনায় মিথ্যে মামলার ঘটনা ঘটে থাকে। সেক্ষেত্রে নিস্তার পাওয়ার অনেক উপায় রয়েছে।  

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *